বিপিএলে বিদেশি ক্রিকেটারদের সংখ্যা বেড়েছে। সে কারণে ঘরোয়া ক্রিকেটাররা বঞ্চিত হচ্ছে। তাই দেশের ছেলেরা যাতে বেশি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলার সুযোগ পায় সে লক্ষ্যে বিপিএলের বাইরে একটি টি-টোয়েন্টি লিগ আয়োজনের কথা উঠেছিল। সেটা নিয়ে আজ কথা বলেছেন ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিটন `সিসিডিএম’ এর নতুন চেয়ারম্যান কাজী ইনাম আহমেদ। তবে এই টি-টোয়েন্টি লিগটি ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন লিগ হলেও কোনো বিদেশি খেলতে পারবে না। শুধুই ঘরোয়া ক্রিকেটাররা অংশ নিবে।

তিনি বলেন, ‘টি-টোয়েন্টি লিগ নিয়ে আমাদের চিন্তা ভাবনা আছে। প্রিমিয়ার লিগের সুপার লিগে যে দলগুলো উঠবে সেই ৬ দল, কিংবা লিগের শীর্ষ ৮ দলকে নিয়ে একটি টি-টোয়েন্টি লিগ করব। ৮ দলের ভাবনাটা এসেছে মূলত প্রিমিয়ার লিগের প্রতিদ্বন্দ্বিতা বাড়াতে। দেখা যায় সুপার লিগের ৬ দল আর রেলিগেশনে থাকা ৩ দল খেলায় লড়াই করছে। সাত-আটে থাকা দলের কিছু নেই। ৮ দলকে নিয়ে হলে সাত-আটে থাকার জন্যও লড়াই হবে। আমাদের চাওয়া মিরপুর স্টেডিয়ামেই এই লিগ করার। এক সপ্তাহ সময় পেলেই সম্ভব। নক আউট বা দুই গ্রুপে ভাগ করে হবে। সেটি টিভিতে সম্প্রচার করা হবে। প্রিমিয়ার লিগের দলগুলোর রোমাঞ্চও বাড়বে।’

তিনি আরো বলেন, ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, মাঠে দর্শক ফিরিয়ে আনা। আমরা টি-টোয়েন্টি লিগটি যদি করতে পারি, তাহল হয়ত দর্শক আসবে। তবে মূল লক্ষ্য অবশ্যই থাকবে প্রিমিয়ার লিগ, যেটি ওয়ানডে সংস্করণে হয়। সুপার লিগে যদি মাঠে দর্শক আসে, যদি টিভিতে সম্প্রচার করতে পারি, তাহলে সবাই উৎসাহিত হতে। লিগ জনপ্রিয় হলেই কিন্তু মাঠে দর্শক উপস্থিতি বাড়বে। মার্কেটিং করা বা স্পন্সর পেতে সুবিধা হবে। জৌলুস ফিরিয়ে আনতে পারলে শুধু লিগ নয়, ক্লাবগুলোও স্পন্সর পাবে।’অবশ্য ২০০৬-০৭ প্রিমিয়ার ডিভিশনে টি-টোয়েন্টি লিগ হয়েছিল। এরপর গেল দশ বছরেও আর হয়নি টি-টোয়েন্টি লিগ। এবার যদি সত্যি সত্যিই সেটা হয়, তাহলে দেশি ক্রিকেটারদের জন্য এবং ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য হবে দারুণ কিছু।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here