ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ইজিবাইকের কারনে বাড়ছে ঝানজট

0
91

হাসান মোল্লা: ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা শহরে ভিবিন্ন প্রবেশ মুখে ঝানজট নিয়ন্ত্রনে একাদিক ট্রাফিক পুলিশ সদস্য থাকলেও অনৈতিক ভাবে যততত ভাবে শহরের ভিবিন্ন স্হান দিয়ে ইজি বাইক,রিক্সা,সিএনজি প্রবেশের কারনে যার্বক্ষনিক লেগে থাকে যানজট। এর মাঝে বড় বড় মালবাহী ট্রাক প্রবেশে এই যানজট অসহনীয় অবস্হায় রুপ নিয়েছে। ব্যয় হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ সময়।খবর নিয়ে জানা যায় ব্রাক্ষণবাড়িয়া পৌরসভার বৈধ কাগজ পত্রের মাধ্যমে মোট ৮৭৭ টি ইজি বাইক চলাচলের অনুমিত প্রক্রিয়াদিন থাকলেও বর্তমানে চলছে প্রায় ৪/৫ হাজার ইজি বাইক।এর উপর অনুমোদনহীন ভাবে ৫/৬ হাজার রিক্সা যেনথেন ভাবে চলছে।এর মধ্যে মাঝে মাঝে সিএনজি শহরের ভিতরে প্রবেশ করে এই যানজটকে আরো বৃদ্ধি করছে। ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা প্রশাসন এর উদ্দ্যোগে গত ১৪/২/২০১৭ তারিখে এক সভায় সিন্ধান্ত গ্রহন করা হয় ব্রাক্ষণবাড়িয়া শহরে মোট ৭ পয়েন্ট দিয়ে নির্দিষ্ট সংখ্যক ইজি বাইক চলাচল করতে পারবে।এই স্হান গুলো হল ১নং রোড কাউতলী থেকে কালিবাড়ি থানা ব্রীজ পর্যন্ত গাড়ী সংখ্যা ১৫০ টি।২ নং রোড গোকর্ণঘাট থেকে পৌরতলা,কালিবাড়ি, শিমরাইলকান্দি পর্যন্ত গাড়ী সংখ্যা২০০ টি। ৩নং রোড কালিসীমা থেকে বর্ডার বাজার,মঠের গোড়া গাড়ী সংখ্যা ১৫০ টি।৪নং রোড লালপুর থেকে বিরাশার, টেংকের পাড় গাড়ী সংখ্যা ১০০টি।৫ নং রোড পীরবাড়ী উপজেলা পরিষদ থেকে টেংকের পাড় গাড়ী সংখ্যা ৬০ টি।৬ নং রোড ঘাটুরা থেকে মেড্ডা, রামকানাই, কুমারশিলের মোর পর্যন্ত গাড়ী সংখ্যা ১৫০ টি।৭ নং রোড উলচাপাড়া থেকে পুনিয়াউট,রেল ষ্টেশন পর্যন্ত গাড়ী সংখ্যা ৬৭ টি চলাচল করতে পারবে।ইজিবাইকের নির্ধারিত ৫ টি স্ট্যানাড থাকলেও ঘাটুরা থেকে মেড্ডা হয়ে রামকানাই ও কুমারশিলের মোর পয়েন্ট ও কালিসীমা থেকে বর্ডার বাজার হয়ে মঠের গোড়ার দুইটি পয়েন্ট সঠিক ভাবে নিজ উদ্দ্যোগ পরিচালনা করে আসলেও পীরবাড়ী উপজেলা পরিষদ থেকে টেংকের পাড় ও লালপুর থেকে বিরাশার হয়ে টেংকের পাড় দুইটি রোডের বাহ্যত বাড়িয়া জেলা ইজি বাইক কমিটি কোন ভুমিকা না থাকায় তারা সরাসরি কুমারশিলের মোড় ও পৌরমার্কের সামনে গিয়ে অবস্হান নেওয়ায় শহরের যানজট বৃদ্ধি পাচ্ছে।পাশাপাশি উওর আঞ্চলের ইজিবাইক মালিক ও শ্রমিক আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। উক্ত সভায় সিন্ধান্ত মোতাবেক গত জুন মাসের মধ্যে ব্যাটারি চালিত রিক্সা থেকে মটর ও ব্যাটারি খুলে পায়ে পেডেল দিয়ে চলাচলের কথা থাকলেও তার কোন কার্যত কোন ভুমিকা নিতে প্রশাসন ও পৌর কতৃপক্ষকে দেখা যায়নি।উক্ত ব্যাটারি চালিত রিক্সা যে যেভাবে পারছে ঘুরে বেরাচ্ছে। যানজট সৃষ্টি করছে।দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে।এই ব্যাপারে যর্থাযথ কতৃপক্ষের জরুরী দৃষ্টি প্রধানের মাধ্যমে যানজট নিরসনে ভুমিকা রাখার দাবী জানাচ্ছে যাত্রী সাধারন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here