সামাজিক কর্মকাণ্ডের জন্য ‘মাদার তেরেসা মেমোরিয়াল অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। প্রিয়াঙ্কা ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত। শিশু-কিশোরদের প্রতি তাঁর মমতা আর নানা সামাজিক কাজের জন্য হারমোনি ফাউন্ডেশন থেকে তাঁকে এই পুরস্কার গ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

২০০০ সালে ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতার মঞ্চে প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার কাছে প্রশ্ন রাখা হয়, তাঁর কাছে সবচেয়ে সফল নারী মনে হয় কাকে? উত্তরে সাবেক এই বিশ্ব সুন্দরী বলেন, ‘পৃথিবীতে অনেক মানুষ আছে, যাদের আমি শ্রদ্ধা ও অনুসরণ করি। কিন্তু আমি মনে করি, পৃথিবীতে এমন একজন নারী আছেন, যিনি জীবনে অনেক কিছু অর্জন করেছেন। তিনি যা করেছেন, তা নিজের বা শুধু নিজের দেশের জন্য নয়, বরং বিশ্বের জন্য করেছেন। তিনি মাদার তেরেসা। তাঁর দয়া আর বিনয়ের জন্য তাঁকে অন্তর দিয়ে শ্রদ্ধা করি। অন্যের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য তিনি নিজের সবকিছু বিলিয়ে দিয়েছেন। আমিও তাঁর এই নীতিতে বিশ্বাস করি।’ প্রিয়াঙ্কা চোপড়া মাদার তেরেসার নীতি নিজের জীবনেও মেনে চলেন।

প্রিয়াঙ্কা শুটিংয়ে ব্যস্ত থাকায় পুরস্কারটি তাঁর পক্ষ থেকে মা মধু চোপড়া গ্রহণ করবেন। মধু চোপড়া বলেন, ‘ছোটবেলা থেকে আমার মেয়ে মাদার তেরেসাকে নিজের আদর্শ মনে করে আসছে। এমন একজন দয়ালু সন্তানের মা হতে পেরে সত্যি গর্বিত। আমার মেয়ে ছোটবেলা থেকেই “যত দান করবে, ততই পাবে” নীতিতে বিশ্বাসী। প্রিয়াঙ্কার সামাজিক কাজকে হারমোনি ফাউন্ডেশন স্বীকৃতি দেওয়ায় আমি তাদের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই।’

হারমোনি ফাউন্ডেশন দুস্থ ও অসহায় মানুষের উন্নয়ের লক্ষ্যে অর্থ সাহায্য সংগ্রহ ও সুবিধাবঞ্চিতদের পুনর্বাসনে কাজ করছে। ডেকান ক্রনিকল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here